খুমের রাজ্য দেবতাখুম

বান্দরবান জেলার একটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত জায়গা দেবতাখুম। এখানে দুইপাশে উঁচু পাহাড়ের মাঝখানে স্বচ্ছ পানি প্রবাহিত হতে থাকে। এটি পর্যটকদের জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান। বান্দরবানের স্থানীয়দের মতে এটি প্রায় ৫০ ফুট গভীর এবং প্রায় ৬০০ ফুট দীর্ঘ। এর কাছেই শীলবাঁধা ঝর্ণা। এই খুমের দুইপাশে রয়েছে বিশাল জঙ্গল।

খাড়া পাহাড়ের কারণে খুমের ভিতর সরাসরি সূর্যের আলো পৌঁছায় না। তাই খুমের যত ভিতরে যাওয়া যায় ততই শীতল মনে হয়। জায়গাটি খুব শান্ত এবং কোলাহলমুক্ত। এর পানিও বেশ স্বচ্ছ। বাঁশের ভেলায় চেপে এই খুমের ভিতর যাওয়া পর্যটকদের এক রোমাঞ্চকর অনুভূতি দেয়।

পাহাড়ের মানুষ গুলির বিশ্বাস এখানে দেবতার বসবাস, তাই তারা এই খুমের নাম দিয়েছেন দেবতাখুম।
দেবতাখুম যাওয়ার পথ দুটি

১.পাহাড়ি পথ: কেউ যদি পাহাড় পছন্দ করেন তাহলে একটি পাহাড় টপকিয়ে যেতে হবে।
২.ঝিরি পথ: কারো কাছে যদি পাহাড়ি পথ কষ্টকর মনে হয়, তাহলে ঝিরি পথে যেতে পারেন। তবে বর্ষাকালে ঝিরি পথে যাওয়াটা বিজদজনক।

কোথায় অবস্থিত?
বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলায় অবস্থিত দেবতাখুম।

কিভাবে যাবেন?
ঢাকা থেকে (ঢাকা-বান্দরবান) বাস যোগে বান্দরবান শহরে নামতে হবে। এখান থেকে চাঁন্দের গাড়ি (দলে সদস্য কম হলে সিএনজি বা অটো রিজার্ভ করেও যেতে পারেন) করে যেতে হবে রোয়াংছড়ি। সেখান থেকে একটা ফর্ম নিয়ে সেটা পূরণ করে রোয়াংছড়ি থানা থেকে দেবতাখুম যাওয়ার অনুমতি নিতে হবে।
অনুমতি নিয়ে যেতে হবে কচ্ছপতলি লিরাগাও আর্মি ক্যাম্পে। এরপর আর্মি ক্যাম্পে রিপোর্ট করতে হবে। এখান থেকেই শুরু হবে দেবতাখুমের যাত্রা।

এ জাতীয় আরও প্রবন্ধ