জুলাইয়ে খুলছে কুয়াকাটার তালা

কুয়াকাটা। দক্ষিণের সাগর-কন্যা। অপার সৌন্দর্যের এক আধার। একই জায়গায় দাঁড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখার মতো বিরল সমুদ্র সৈকত।

দুষ্টু করোনার থাবায় বিরাণভূমি হয়ে উঠেছিল প্রাণচাঞ্চল্যে ভরা কুয়াকাটা। নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণের রাশ টানতে গত ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ ছিল এই পর্যটন এলাকার সব হোটেল-মোটেল। নিষিদ্ধ ছিল সৈকতে ভ্রমণ।  কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের অনুরোধে প্রায় সাড়ে তিন মাস পর তুলে নেওয়া হয়েছে এই নিষেধাজ্ঞা। খুলে দেওয়া হচ্ছে সব হোটেল-মোটেল ও দর্শনীয় স্থান। তবে সব কিছুই পরিচালিত হতে হবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে।

আগামী ১ জুলাই থেকে কুয়াকাটা ভ্রমণ করা যাবে। থাকা যাবে যে কোনো হোটেলে। ঘুরে দেখা যাবে রাখাইন পল্লী, বৌদ্ধ মন্দির, শুঁটকি পল্লী, বার্মিজ মার্কেট, ঝিনুক বিচ। যাওয়া যাবে লাল কাঁকড়ার চর, লেবুর চর, ফাতরার বনে।

পর্যটকদের জন্যে কুয়াকাটা খুলে দেওয়ার আগে তাদের সুরক্ষায় চলেছে ব্যাপক প্রস্তুতি। গত ৫ জুন থেকে পর্যটকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের আয়োজনে ও হোটেল মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায় হোটেল মালিক ও কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্টদের তিনদিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ গণমাধ্যমকে এসব প্রস্তুতির বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘একজন পর্যটক গাড়িসহ এলে প্রথমে নির্দিষ্ট পোশাকে হোটেল কর্মীরা গেস্টকে গাড়িসহ মালামাল, শরীর, জীবাণুনাশক স্প্রে করে নিবে। হাত-পা ওয়াশ করানোর ব্যবস্থা করবে। হোটেলে আলাদা স্যান্ডেল রাখা হবে। দর্শনার্থীর কক্ষ আগে থেকেই স্বাস্থ্যবিধি অনুসারে ব্যবহার উপযোগী করা হবে। নির্দিষ্ট ব্যক্তি কিংবা ব্যক্তিরা একই কক্ষে অবস্থান করবেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘এছাড়া পর্যটন এলাকার ভ্যান, অটো, মোটরসাইকেলসহ যানবাহন ব্যবহারের আগে জীবাণুনাশক স্প্রে করার বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে। যানবাহনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করবে। বিচের বেঞ্চিতে অবস্থানকালেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এসব বিষয় এরই মধ্যে হোটেল ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তিন দিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।’

পর্যটন করপোরেশনের মোটেলে ছাড়

কুয়াকাটা ভ্রমণে উৎসাহ যোগাতে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের আওতাধীন হোটেলে ৫০ শতাংশ মূল্য ছাড় ঘোষণা করা হয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও প্রবন্ধ